top of page

মুচমুচে - মুখরোচক - উচ্ছে - আলু - ভাজা


সকালে ঘুম থেকে উঠেই প্রথম চিন্তা ,চার - চারটি বেলায় সবার জন্য কি কি রাঁধবো | কখনো সখনো আগের দিনে ও কিছু টা চিন্তা সেরে রাখি | আজ সকালে তরকারী ঝুড়িতে দেখি কয়েকটা কচি কচি একেবারে সবুজ উচ্ছে | চিন্তা করলাম আজ দুপুরে খুব মুখরোচক আর মুচমুচে করে আলু আর উচ্ছে একসঙ্গে ভাজবো | প্রথম পাতের শুরুটা মনে হয় ভালোই হবে | আর শুরুটা ভালো হলে তো শেষ পর্যন্ত ভালো হবেই |

আমাদের দৈনন্দিন জীবনে আমরা অনেক অনেক রকমের শাক-সবজি খাদ্য তালিকায় রেখে থাকি | উচ্ছে এমন এক সবজি যা আমাদের ছোট থেকে বড়ো সবার শরীরের জন্য ভীষণ ভীষণ উপকারী | আমাদের খাবার টেবিলে তো মাঝে মধ্যেই উচ্ছের কোনো একটা মেনু রাখা অবশ্যই উচিত | আর তাই আমি ও মাঝে মাঝেই উচ্ছের কোনো না কোনো মেনু দুপুরের মেনুতে রেঁধেই থাকি | আজকে রাঁধছি উচ্ছে -আলু ভাজা |

সবুজ সবজি উচ্ছে নানা খাদ্যগুণে ভরপুর | রক্ত কে পরিশ্রুত করতে ,লিভার ভালো রাখতে , পেট ভালো রাখতে ,মুখের স্বাদ বাড়াতে ,আর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কথা রক্তে ইনসুলিনের পরিমান নিয়ন্ত্রণে এর ভূমিকা অসীম |তাই ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য উচ্ছে কেবলমাত্র ভীষণ উপকারী এক সবুজ সবজিই নয় ......এক মহৌষধ ||

আজ ছুটির দিন | আর সকালের জলখাবারটাও বেশ মজাদার হয়েছে | সব্বাই খুশি খুশি | এবার তৈরি করবো দুপুরের মেনু | কিন্তু মুচমুচে - মুখরোচক - উচ্ছে - আলু ভাজবো সব রান্নার শেষে | গরম গরম ভাত আর গরম গরম আলু - উচ্ছে ভাজা | খাওয়ার শুরুটা একেবারে দারুন ............দারুন হবে |


উপকরণ :-


  • উচ্ছে - ২৫০ গ্রাম ( ছোট ছোট টুকরো করে কুচানো )

  • আলু - ৪টি মাঝারি সাইজের ( খোসা ছাড়িয়ে ছোট ছোট টুকরো করে কাটা )

  • রসুন - ১২-১৪টা কোয়া ( খোসা ছাড়িয়ে কুচানো )

  • লাল রঙের কাঁচালঙ্কা বা লাল শুকনোলঙ্কা - ৪-৫টা ( ছোট ছোট টুকরো করে কাটা )

  • পাঁচফোড়ন - ১/২ চামচ

  • হলুদ - ১/২ - ১ চামচ

  • নুন - প্রয়োজনমতো

  • চিনি - প্রয়োজনমতো

  • সর্ষের তেল - প্রয়োজনমতো


পদ্ধতি :-


সব রান্না শেষ করে ফেলেছি | বাকি ''মুচমুচে আর মুখরোচক উচ্ছে - আলু ভাজা'' | ভাজা শুরুর আগে কুচানো আলু ,কুচানো উচ্ছে ভালো করে ধুয়ে জল ঝরিয়ে নিলাম | গ্যাসে কড়াই চাপলাম | দিলাম প্রয়োজনমতো তেল | তেল বেশ গরম হয়ে উঠলেই কুচানো উচ্ছে গুলো কড়াইতে দিলাম | দিলাম এক চিমটে হলুদ ,এক চিমটে নুন , এক চিমটে চিনি| আঁচ বাড়িয়ে কমিয়ে কুচানো উচ্ছে মুচমুচে করে ভেজে তুলে রাখলাম |



এবার কড়াইয়ের ওই তেলের মধ্যেই প্রয়োজন মতো আর একটু তেল দিলাম | তেল গরম হতেই দিলাম পাঁচফোড়ন ,কুচানো রসুন ,কুচানো লাল কাঁচালংকার টুকরোগুলো | আঁচ কমিয়ে একটু নেড়েচেড়ে নিয়ে ,আঁচ বাড়িয়ে দিলাম আলুর কুচানো টুকরোগুলো | আঁচ বাড়িয়ে নাড়তে নাড়তে দিলাম হলুদগুঁড়ো ,নুন আর সামান্য চিনি | আঁচ বাড়িয়ে কমিয়ে আলু বেশ মুচমুচে করে ভাজা হয়ে গেলে ,মিশিয়ে দিলাম মুচমুচে করে ভাজা উচ্ছের টুকরোগুলো |সব ভালো করে মিশিয়ে নিতে লাগলাম |

উচ্ছে - আলু ভাজার স্বাদ দেখে নিলাম | বাঃ !...... বেশ টেস্টি টেস্টি আর মুখরোচক হয়েছে তো | আমার মনের মতোই হয়েছে |

সবার ভালো তো লাগবেই |


এবার যথারীতি খাওয়ার সময় হতেই সবাই খাবার টেবিলে চলে এলো | খাওয়া শুরু হলো গরম ভাত আর সঙ্গে গরম গরম মুখরোচক উচ্ছে - আলু ভাজা | খাবার মুখে দিতেই সবাই একসঙ্গেই বলে উঠলো ........ও - হো - হো ! কি দারুন ! কি দারুন !........খেতে কি ভালোই না হয়েছে ,তাই না ?......খুব স্বাদের ,খুবই স্বাদের ........মন ভরে গেলো | সবার এই আলোচনা শুনতে শুনতে মনটা কেমন খুশিতে ভরে ভরে যাচ্ছিলো | সবাইকে খাবার পরিবেশন করে ,আমি ও তাড়াতাড়ি গরম ভাত আর গরম গরম উচ্ছে - আলু ভাজা দিয়ে খাওয়া শুরু করে দিলাম ...................বাহঃ!....বাহঃ ! সত্যিই তো দারুন ! দারুন ! লাগছে .........| |


খুব আনন্দ করে আপনারা ও সব্বাই ভালো খান ,থাকুন সুস্থ আর অনেক অনেক আনন্দে আনন্দিত |



29 views0 comments

Comments


bottom of page