top of page

মটরশুঁটির - কচুরি


আশ্চার্য্য ! সত্যিই আশ্চার্য্য ! এবার তো আমরা মটরশুঁটির কচুরি খেলাম না ! কি ব্যাপার ? কি হলো ?

শীতকাল চলে গেছে | কিন্তু আমাদের বাড়িতে এখনো আমাদের ভীষণ ভীষণ প্রিয় মটরশুঁটির কচুরি আমরা কেউ খেলাম না | এরকম চলবে না | এই বার মটরশুঁটির গরম গরম কচুরি খাবই খাবো | সবই শুনলাম |সবাই একটু রেগেই গেছে ,তাও বুঝলাম | সত্যি খুব ভুল হয়ে গেছে | এবার মটরশুঁটির কচুরি একদিন ভাজতে হবেই হবে |এটা আমারই ভুল, অস্বীকার করবো না |


নিজের দোষ স্বীকার করে নিয়ে বললাম,আসছে ছুটির দিনে সব্বাই বাড়িতে থাকবে, জলখাবারে গরম গরম মটরশুঁটির কচুরি ভেজে খাওয়াবো | সবার মুখ খুশিতে ঝলমল করে উঠলো | বলে উঠলো ঠিক আছে ,ঠিক আছে .....আমরা খুশি | খুব আনন্দের সঙ্গে অপেক্ষা করবো |


যথারীতি ছুটির দিন রোববার চলেই এলেন | মটরশুঁটির কচুরি ভেজে খাওয়ানোর দিন | সব্বাই অপেক্ষা করে আছে | কিছু কিছু উপকরণ ,যেমন ময়দা ,সাদাতেল, হিং ইত্যাদি ইত্যাদি আগে থেকেই জোগাড় করেই রেখেছি | সকালে বাজার থেকে আনিয়েছি ,মটরশুঁটি ,আদা , রসুন , কাঁচালঙ্কা.........আরো কিছু বাজার | যাইহোক আর সময় নষ্ট না করে কচুরি ভাজার প্রস্তুতি শুরু করলাম |


উপকরণ :-


  • ময়দা -৭৫০ গ্রাম

  • মটরশুঁটি - ১ কিলো খোসা সমেত

  • আদা বাটা - ২-৩ চামচ

  • রসুন বাটা - ২-৩ চামচ

  • কাঁচালঙ্কা বাটা - ৩-৪ চামচ ( ঝাল নিজের নিজের পছন্দ মতো )

  • নুন - প্রয়োজনমতো

  • চিনি - প্রয়োজন মতো

  • হিং - ২-৩ চামচ

  • সর্ষের তেল - প্রয়োজনমতো

  • সাদা তেল - প্রয়োজনমতো


পদ্বতি :-


প্রথমেই মটরশুঁটিগুলো ছাড়িয়ে নিয়ে একটা কড়াইয়ের মধ্যে নিলাম | কড়াইতে প্রয়োজনমতো জল দিয়ে কড়াই গ্যাসে চাপলাম | মটরশুঁটি অল্প ভাপিয়ে নিলাম | গ্যাস বন্ধ করে অল্প সেদ্ব মটরশুঁটিগুলো জল ঝরিয়ে একটা পাত্রে রেখে দিলাম |



এবার ময়দা একটা পাত্রে নিলাম | ময়দের মধ্যে ময়ানের জন্য দিলাম ,প্রয়োজনমতো সাদা তেল | আরো দিলাম নুন ,চিনি ,হিং | সমস্ত উপকরণ ভালো করে মেশাতে লাগলাম | তারপর প্রয়োজনমতো জল দিয়ে ময়দা ঠেসে ঠেসে নরম করে মেখে নিলাম | ময়দা মাখাতে কিছুটা সাদা তেল মাখিয়ে একটা ঢাকা দিয়ে রেখে দিলাম |


পাত্রে রাখা মটরশুঁটিগুলো প্রয়োজনমতো মিক্সিতে ২-৩ বার নিয়ে মিহি করে বেটে নিলাম | সমস্ত বাটা মটরশুঁটি একটা পাত্রে নিলাম | তার মধ্যে দিলাম নুন ,চিনি ,আদা বাটা ,রসুন বাটা , কাঁচালঙ্কা বাটা |

গ্যাসে কড়াই চাপিয়ে প্রয়োজনমতো সর্ষের তেল দিলাম| তেল গরম হলেই পাত্রের সমস্ত উপকরণ কড়াইতে দিয়ে দিলাম | আঁচ বাড়িয়ে কমিয়ে বাটা মটরশুঁটি কষে নিয়ে তাক তাক মতো কচুরির পুর তৈরি করে নিলাম |


এখন মাখা ময়দা থেকে লেচি তৈরি করলাম | প্রত্যেক লেচির মধ্যে প্রয়োজনমতো কষা মটরশুঁটির পুর ভরে নিয়ে ,চাকি বেলনাতে নিয়ে কচুরির আকারে বেলে রাখলাম | গ্যাসে কড়াই চাপিয়ে ভাজার মতো সাদা তেল কড়াইতে দিলাম | তেল ভালমতে গরম হলেই বেলা কচুরি গুলো কড়াইতে দিয়ে আঁচ বাড়িয়ে কমিয়ে ফুলো ফুলো লুচির মতো ভেজে তুলে নিলাম | সমস্ত কচুরি ভেজে নিয়ে গ্যাস বন্ধ করলাম |


এইবার কি হবে ? জমিয়ে শুধু খাওয়া আর খাওয়া | জলখাবারের টেবিলে সবাই খুশি | সবাইকে দিলাম ফুলো ফুলো গরম গরম মটরশুঁটির কচুরি ,সঙ্গে গোলমরিচে কষা মটরের মাখো মাখো ঘুগনি |সবার আনন্দের চিৎকার...... বাঃ বাঃ দারুন !নেই কোনো রাগ ,নেই কোনো দুঃখ , শুধু আনন্দ আর আনন্দ | গরম গরম খুব মুখরোচক আর খুব স্বাদের মটরশুঁটির কচুরি খাওয়ার আনন্দ |


থাকুন অনেক অনেক আনন্দে ,ফুর্তিতে আর শান্তিতে |



bottom of page