top of page

ছোটোবড়ো - লংকার - চপ


আজ ''মহালয়া ''। দেবীপক্ষের শুরু। কথাটা কত সুন্দর ! তাই না ? দেবীপক্ষের শুরু ...........মনে হয় এবার স ......ব ভালোর শুরু। আর সত্যি সত্যিই এই সব ভালোর শুরু যেন গড়িয়ে গড়িয়ে চলে সারা বছর, আমাদের সবার জীবনে , সমস্ত জীবনে।'' মা উমা ''.....সবার প্রাণের ''মা'। সব্বাই চায় মায়ের আগমনে সবাই যেন আনন্দে ভরে থাকে।'' মা '' যেন সবার প্রাণের কাছেই পৌঁছে যায়। মা যে তাদের সবার ''মা ''।



ভোরের রেডিওতে শুরু হয়ে গেছে শ্রী শ্রী বীরেন্দ্র কৃষ্ণ ভদ্র মহাশয়ের ''মহিষাসুর মর্দিনীর '' পাঠ। আহা - হা !কি অপূর্ব ! কি অপূর্ব !বাড়ির সবাই মগ্ন হয়ে '' মহালয়া '' পাঠ শুনছে । '' মহালয়া '' শুনতে শুনতেই সবার কাছে পৌঁছে দিলাম ,ভোরের চা। ধীরে ধীরে জলখাবারের পাট ও শেষ হয়ে গেলো। বেশ জমিয়েই জলখাবার হয়েছে। দিনের বাজার ও এসে পৌঁছে গেলো। দেখা যাক বাজারে কি কি এলো ?



ওমা ! একী ! বাজারের থলিতে ১২-১৩টা বড়ো বড়ো সবুজ সবুজ লঙ্কা ? এগুলো দিয়ে কি করবো ? কি করবো ?এত্ত সবুজ আর এত্ত টাটকা লঙ্কাগুলো দেখে মন যেন ভরে .....এ যাচ্ছে । হঠাৎ মনে হলো। আজ মহালয়ার বিকালে সবাইকে চায়ের

টেবিলে যদি গরম গরম ছোটোবড়ো লংকার চপ ভেজে দি ,তবে চায়ের টেবিল উৎসবের আনন্দে জমে উঠবেই। ঠিক চিন্তাই করেছি ,একদম ঠিক।


মধ্যাহ্ন ভোজনের পর সবাই যখন ভাত ঘুমে ব্যস্ত ,তখন আমি ব্যস্ত লংকার চপ ভাজার চিন্তায়। আজ বিকালে সবাইকে আনন্দ দেবোই। জমিয়ে দেবো আজকের বিকালের চায়ের টেবিল। গুটি গুটি পায়ে ঢুকে পড়লাম আমার প্রিয় রান্নাঘরে। কোমর বেঁধে লেগে গেলাম টেস্টি টেস্টি ছোটোবড়ো লংকার চপ তৈরিতে ........................


উপকরণ :-


  • বড়ো সবুজ লঙ্কা - ১২-১৩ টা

  • কাঁচালঙ্কা - ১২-১৩টি চপ ভাজার জন্য। ১২-১৩টি আলুর পুর তৈরির জন্য

  • আলু - ৫-৬টি একটু বড়ো সাইজের

  • রসুন - ১টা গোটা ,মাঝারি সাইজের ( কোয়া গুলো আলাদা করে নিয়ে খোসা ছাড়ানো )

  • আদা - ইঞ্চি খানেক ( খোসা ছাড়িয়ে টুকরো টুকরো করে রাখা )

  • বেসন - ১ কাপ মতো

  • কর্ন ফ্লাওয়ার - ৩-৪ চামচ

  • ডিম্ - ২টি

  • কিশমিশ - ৩-৪ চামচ

  • বাদাম - ৩-৪ চামচ (একটু আধ ভাঙা আধ ভাঙা করে রাখা )

  • ঘি - ২-৩ চামচ

  • সর্ষের তেল - প্রয়োজনমতো

  • সাদা তেল - প্রয়োজনমতো

  • নুন - প্রয়োজনমতো

  • চিনি - প্রয়োজনমতো


পদ্ধতি :-


রান্নাঘরে ঢুকে ,প্রথমেই আলু গুলো দু - টুকরো করে প্রেসার কুকারে নিয়ে সেদ্ধ করে নিলাম। এবার প্রেসার কুকার থেকে জল ঝরিয়ে নিয়ে সেদ্ধ আলুগুলো একটা পাত্রে নিয়ে নিলাম। সেদ্ধ আলুর খোসা ছাড়িয়ে মিহি করে মেখে নিলাম। মিক্সিতে ১০-১২ টা কাঁচালঙ্কা ,আদা কুচি ,খোসা ছাড়ানো রসুনের কোয়া গুলো নিয়ে ভালো করে বেটে নিলাম। মিক্সির বাটাটা আলু সেদ্ধ মাখার মধ্যে দিয়ে দিলাম। দিলাম প্রয়োজনমতো নুন আর চিনি। সমস্ত ভালো করে মিশিয়ে নিলাম।


এবার গ্যাসে কড়াই চাপিয়ে প্রয়োজনমতো সর্ষের তেল দিলাম। তেল গরম হলে দিলাম ভাঙা ভাঙা বাদামের টুকরো গুলো আর কিশমিশ। একটু নেড়ে নিয়ে কড়াইতে দিলাম মেখে রাখা আলুর মিশ্রণটা। খুব ভালো করে সমস্তটা নাড়াচাড়া করতে লাগলাম। আলুর মিশ্রণ থেকে ভাজা ভাজা গন্ধ বার হতেই ,দিলাম ২-৩ চামচ ঘি। কি সুন্দর গন্ধ ! রান্নার স্বাদ দেখে নিয়ে গ্যাস বন্ধ করলাম। আলুর পুর তৈরি।


এখন লঙ্কাগুলো ভালো করে ধুয়ে ,জল ঝরিয়ে নিলাম। ছুরি দিয়ে লম্বালম্বি করে বড়ো আর ছোট ছোট লঙ্কাগুলোকে চিরে নিলাম। ভেতর থেকে লংকার বিচিগুলো ফেলে দিলাম , আর লংকার ফাঁকা জায়গায় ভালো করে ভরে দিলাম ,বানিয়ে রাখা আলুর পুর।



এরপর একটা পাত্রের মধ্যে নিলাম বেসন ,কর্ন -ফ্লাওয়ার ,প্রয়োজনমতো নুন ,কয়েকদানা চিনি। ভালোকরে মেশাতে লাগলাম। মিশ্রনের মধ্যে ২ টো ডিম্ ফাটিয়ে দিলাম। মিশ্রণ খুব ভালো ভাবে ফেটিয়ে ফেটিয়ে মিশিয়ে নিলাম। মিশ্রণ কিন্তু খুব ঘন হবে না। একটু হালকা হলে লংকার চপের টেস্ট ও খুব ভালো হবে।


গ্যাসে কড়াই চাপিয়ে প্রয়োজনমতো সাদা তেল দিলাম। তেল গরম হতেই ,ছোট বড়ো কয়েকটা পুরভরা লঙ্কা বেসনের মিশ্রনে ডুবিয়ে ,কড়াইতে গরম তেলের মধ্যে ছেড়ে দিলাম। আঁচ বাড়িয়ে কমিয়ে ,লংকার চপ মুচমুচে করে ভেজে ভেজে তুলে রাখলাম। কখন দুপুর গড়িয়ে সন্ধ্যে হয়ে গেছে ,খেয়ালই করিনি। সবার আওয়াজে বুঝতে পারলাম চায়ের সময় হয়ে গেছে।


'' মহালয়া''-র সন্ধ্যাকে প্রণাম জানিয়ে ,চায়ের টেবিলে সবাইকে ডেকে নিলাম। দিলাম গরম গরম চা ...আর সঙ্গে গরম গরম ছোটোবড়ো মিশিয়ে মুচমুচে লংকার চপ। সবাই আনন্দে আহ্লাদিত। সবার সঙ্গে আমি ও কামড় বসলাম গরম লংকার চপে .........ওঃ ! বড়োই সুন্দর হয়েছে তো ! তাই সবার এতো আনন্দ ,এতো ভালোলাগা।


আপনারা ও সবাই খুব খুব ভালো থাকুন।সুস্থ থাকুন। আ .......নন্দে থাকুন।


9 views0 comments

Comentarios


bottom of page