top of page

ট্যাংরা - পেঁয়াজকলি - মুখরোচক - ঝোল


ঝাল -মশলায় মাখামাখি যে ....কোনো রান্নার কথা ভাবতেই ......জিভ জলে ভরে ওঠে !!! কিন্তু .....কিন্তু কম মশলায় রান্না করা অনেক রান্না ও .....জিভে এনে দেয় এক অপূর্ব স্বাদ !.........স্বাদ যেন জিভ থেকে সরতেই চায় না ......শুধুই মনে হয় .....আর একবার খাবো .....আরো একবার খেতে পেলে মন বোধহয় আনন্দে আনন্দে আর অনেক অনেক খুশিতে ভরে যাবে | আহা ....হা ....হা ................



আমার আজকের দুপুরের মেনুতে এমন একটা পদই রাখার ইচ্ছে হচ্ছে | বাজারের থলি থেকে বার করেছি একেবারে টাটকা রসালো খানিকটা পেঁয়াজকলি | শীতকালে পেঁয়াজকলি এক অপূর্ব স্বাদের সবজি | সবার সবার প্রিয় পেঁয়াজকলি ভাজা | আমাদের সবারই খুব খুব পছন্দের সবজি |



আর আমার মাছের থলি থেকে বার হলো ,ভীষণ ভীষণ টাটকা ,সব বাঙালিদের প্রিয় এক ছোট মাছ .....ট্যাংরা - মাছ | বড়োই সুন্দর স্বাদের ,স্পেশাল স্বাদের এক ছোট মাছ | বাঙালিদের ঘরে ঘরে রান্না হয় .....তাদেরই পছন্দের ....ট্যাংরা মাছের নানা মুখরোচক মেনু | আমি ও আজকে খুব মুখরোচক করে স্পেশাল করে ....কম মশলায় রান্না করবো .....পেঁয়াজকলি আর ট্যাংরামাছের খুবই খুবই মুখরোচক এক ঝোলের মেনু | গরম গরম ভাতের পাতে .....ট্যাংরা - পেঁয়াজকলি গরম গরম ঝোল ....যে কি অসাধারণ লাগে ......সেটা বোধহয় একমাত্র চেখে দেখলেই সব্বাই বুঝতে পারবে .......বুঝতে পারবেই |


উপকরণ :-


  • ট্যাংরা - মাছ - ৬০০ থেকে ৭০০ গ্রামের মতো ( কেটে কুটে পরিষ্কার করে নুন হলুদ মাখানো )

  • পেঁয়াজকলি - ৫০০ গ্রাম ( লম্বালম্বি করে কেটে নিয়ে ,জলে ধুয়ে ....জল ঝরানো )

  • আলু - ৩টি ,মাঝারি সাইজের ( খোসা ছাড়িয়ে লম্বালম্বি করে ,একটু মোটা মোটা করে কেটে ,জলে ভেজানো)

  • টমেটো - ১টা ,ছোট সাইজের ( কুচানো )

  • পেঁয়াজ - ২টি ,ছোট সাইজের ( খোসা ছাড়িয়ে নিয়ে ,খুব মিহি করে কুচানো )

  • রসুন কোয়া - ৩-৪ টি ( খোসা ছাড়িয়ে খুব মিহি করে কুচানো | ইচ্ছা না হলে নাও দিতে পারেন |তবুও ঝোল খেতে হবে অসাধারণ )

  • কাঁচালঙ্কা - ৪-৫ টি ( অর্ধেক করে চিরে রাখা )

  • শুকনোলঙ্কা - ৩-৪টি ( একটু করে ফাটানো )

  • পাঁচফোড়ন - ১ চামচ

  • হলুদ - ২ চামচ মতো

  • জিরেগুঁড়ো - ২-৩ চামচ

  • লাল লঙ্কাগুঁড়ো - ১ - ১.৫ চামচ ( ঝাল অবশ্যই নিজের নিজের পছন্দ মতো )

  • নুন - প্রয়জনমতো

  • চিনি - দু - এক দানা ,রান্নায় সুন্দর রং আর সুন্দর স্বাদের জন্য

  • সর্ষের তেল - প্রয়োজনমতো


পদ্ধতি :-


গ্যাসে কড়াই চাপিয়ে মাছ ভাজার মতো তেল দিলাম | তেল ভালোমতো গরম হলে ,সমস্ত নুন - হলুদ মাখানো ট্যাংরা মাছগুলো ,কড়া করে ভেজে তুলে নিলাম | কড়াইয়ের এই তেলের মধ্যেই আর একটু তেল দিলাম | তেল গরম হলে আঁচ কমিয়ে দিলাম ....ফাটানো শুকনোলঙ্কাগুলো ,দু - একটা কাঁচালঙ্কা ,পাঁচফোড়ন , কুচানো পেঁয়াজ আর কুচানো রসুনের টুকরো গুলো |


আঁচ বাড়িয়ে কমিয়ে একটু নেড়ে নিয়ে দিলাম জল ঝরানো আলুর টুকরোগুলো | আঁচ বাড়িয়ে কমিয়ে ভালো করে ভাজতে লাগলাম | আঁচ কমিয়ে দিলাম হলুদ আর কয়েকদানা চিনি | আঁচ বাড়িয়ে একটু নেড়ে নিয়ে দিলাম টমেটোর টুকরোগুলো | আবার নাড়তে নাড়তে আলু পেঁয়াজে হালকা সোনালী রং ধরতেই ,আঁচ কমিয়ে দিলাম জিরেগুঁড়ো আর অল্প লালঙ্কার গুঁড়ো |


আঁচ বাড়িয়ে কমিয়ে নাড়তে নাড়তে ,মশলার সুন্দর গন্ধে ,রান্নাঘর ভরে উঠতেই ,দিয়ে দিলাম পেঁয়াজকলির কাটা

টুকরোগুলো | হালকা হাতে কয়েকরার নেড়েচেড়ে নিয়ে ,ঝোলের পরিমিন ঠিক করে নিয়ে কড়াইতে দিলাম জল | সুন্দর গন্ধে মাতিয়ে ঝোল ফুটে উঠতেই ,ভাজা ট্যাংরা - মাছগুলো কড়াইতে ছেড়ে দিলাম | বেশি আঁচে কয়েকবার ফুটে যাওয়ার পর ,আঁচ কমিয়ে একটা ঢাকা দিয়ে রান্না মজতে দিলাম |


কিছুক্ষন বাদে ঢাকা খুলে রান্নার স্বাদ ঠিকঠাক তাক তাক হয়েছে মনে হতেই ,মন আনন্দে ভরে গেলো | আঁচ বাড়িয়ে ঝোলের পরিমান ঠিক করে নিয়ে গ্যাস বন্ধ করলাম | কড়াই থেকে রান্না একটা পাত্রে ঢেলে নিয়ে ,খাবার টেবিলের অপেক্ষায় থাকলাম |সুন্দর এক অসাধারণ গন্ধে খাবার টেবিল তো ভরেই উঠেছিল , সবার মন যেনো খুশিতে খুশিতে মাখামাখি |.........তবে গরম ভাতে ট্যাংরা - পেঁয়াজকলির ঝোলের স্বাদে ,মনে হলো সত্যি সত্যিই সবার চোখমুখই ভরে উঠেছে অনাবিল এক আনন্দে .........


ভালো খেতে হবে ,সুস্থ থাকতে হবে ,থাকতে হবে অনেক অনেক আনন্দে ,অনেক অনেক খুশিতে |


17 views0 comments

Commentaires


bottom of page