top of page

থোড় - ছেঁচকি



কলাগাছ ! আমাদের জন্য প্রকৃতির এক অপূর্ব সৃষ্টি | যেন আমাদের এক মঙ্গলময় বন্ধু | যে কোন শুভ কাজই শুরু করি আমরা আমাদের এই বন্ধুকে সঙ্গে নিয়ে | কলাগাছের পাতা, ফল, ফুল, কান্ড সবই খাদ্য গুন আর ঔষুধি গুনে ভরপুর ; আর এই গাছের কচি কান্ডই কিন্তু আমাদের সবার পরিচিত সবার প্রিয় সবজি --- থোড় | প্রচুর পুষ্টিগুণ আর আইরণে সমৃদ্ধ এই সবজির কাঁচা রস বা রান্না তরকারি রক্তে হিমোগ্লোবিনের পরিমান বাড়াতে ভীষণ ভাবে সাহায্য করে | তাই রক্তাল্পলাতায় যারা ভুগছেন, তাদের কাছে কিন্তু অবশ্যই "থোড়" এক মহা ঔষধ |


আর থোড়ের নানা খাদ্যগুণের জন্যই পরিবারের সবার কথা ভেবে, বিশেষ করে আমার মায়ের কথা ভেবে মাঝে মাঝেই আমার রান্নাঘরে ঠাঁই করে নেয় আমাদের সবার প্রিয় সবজি থোড়ের নানা রকম মেনু |আজ আমার রান্নাঘরের মেনু থোড় ছেঁচকি | গরম ভাতে আর প্রথম পাতে অতীব সুন্দর


উপকরণ :-

  • থোড়- কুচানো ৪,৫ কাপ (খোসা ছাড়িয়ে নিয়ে খুব ছোট ছোট কুচি কুচি করা)

  • গোটা কালো বা সাদা সরষে - ১ চা চামচ

  • গোটা কাঁচা লঙ্কা - ৩,৪ টি (ইচ্ছে না হলে নাও দিতে পারেন)

  • গোটা শুকনো লঙ্কা - ৩,৪ টি

  • হলুদ - ১/২ চা চামচ

  • নুন - প্রয়োজনমতো

  • চিনি - প্রয়োজনমতো (অবশ্য অবশ্যই লাগবে)

  • সর্ষের তেল বা সাদা তেল - প্রয়োজন মতো


পদ্ধতি :-


প্রথমেই কুচানো কচি থোড় একটা পাত্রে নিয়ে সামান্য নুন দিয়ে চেপে চেপে মাখতে লাগলাম | ভালো করে মেখে নিয়ে কিছুক্ষন রেখে দিলাম | নুন মাখা থোড় থেকে কিছু পরিমান জল বেরিয়ে এলো | নুন জলের পাত্র থেকে জল ঝরিয়ে থোড় কুচি অন্য এক পাত্রে তুলে রাখলাম | গ্যাসে কড়াই গরম করে তেল দিলাম |


তেল গরম হলে দিলাম গোটা সরষে আর ৩,৪ টি ফাটানো গোটা শুকনো লঙ্কা আর জল ঝরানো থোড় কুচি | বেশি আঁচে একটু নেড়েচেড়ে নিয়ে দিলাম ১/২ চামচ হলুদ , প্রয়োজন মতো নুন আর অবশ্যই প্রয়োজন মতো চিনি |


সমস্ত উপকরণ বেশি আঁচে ভালো করে নাড়া চাড়া করতে লাগলাম |মিশ্রণ থেকে হলুদের গন্ধ চলে গেলেই .আঁচ কমিয়ে একটা ঢাকা দিয়ে রান্না কিছুক্ষন হতে দিলাম|


থোড় সুসিদ্ধ হয়ে এলেই রান্নার স্বাদ দেখে নিলাম, সব ঠিক ঠাক মনে হলেই গোটা কাঁচা লঙ্কা ছড়িয়ে আঁচ বাড়িয়ে রান্না একটু নেড়েচেড়ে ভাজা ভাজা করে নিলাম .আর গ্যাস বন্ধ করে দিলাম | তৈরি আমার প্রিয় থোড় ছেঁচকি |


দুপুরে খাবার টেবিলে সবাইকে প্রথমেই দিলাম গরম গরম ভাত আর সঙ্গে ৩,৪ চামচ থোড় ছেচকি |

সবাই খেয়ে বললো অসাধারণ | কিন্তু সবচাইতে ভালো লাগলো যখন মা বললো কী সুন্দর রে, মুখ স্বাদে ভরে গেলো | আর তখন আমার মন ও আনন্দে ভরে উঠলো |


আপনারাও সব্বাই খুব খুব আনন্দে থাকবেন, সুস্থ থাকবেন, ভালো থাকবেন |

107 views0 comments

Comments


bottom of page